পার্বত্য চট্টগ্রামের বান্দরবানে গত মাসেই (১৯ জুলাই) অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত হয়েছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা ও পল্লী চিকিৎসক উগ্যা মং। এবার তার এক সৎভাই উসাই সং (৩৪) অস্ত্রের মুখে অপহরণ করেছে সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা।

শনিবার (৭ আগস্ট) সন্ধ্যায় সদর উপজেলার কুহালং ইউনিয়নের এক নম্বর রাবার বাগান এলাকার তুংক্ষ্যং পাড়া থেকে তাকে অপহরণ করা হয়।

অপহৃত উসাই সংয়ের বাড়ি ক্যপ্রু পাড়া এলাকায়। তিনি রাবার বাগান এলাকায় রাজমিস্ত্রির কাজ করতে গিয়েছিলেন।

অপহরণের খবর পেয়ে সেনাবাহিনী ও পুলিশ তাকে উদ্ধারে অভিযানে নেমেছে। অপহরণের সঙ্গে পাহাড়ের আঞ্চলিক রাজনৈতিক সংগঠন জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) সশস্ত্র ক্যাডাররা জড়িত বলে দাবি করছেন স্থানীয়রা। তবে বিষয়টি অস্বীকার করেছেন জেএসএস নেতারা।

কুহালং ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান সানু প্রু মারমা বলেন, রাজবিলা এবং কুহালং ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে। তবে কারা অপহরণ করেছে বলতে পারছি না।

রাজবিলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ক্যঅং প্রূ মারমা জানান, অপহরণের ঘটনাটি কুহালং ইউনিয়নে পড়েছে। অপহরণের সঙ্গে কারা জড়িত তা জানা যায়নি।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বান্দরবান পুলিশ সুপার জেরীন আখতার বলেন, অপহরণের খবর পেয়েছি। তবে পরিবারের পক্ষ থেকে এখনো অভিযোগ করা হয়নি। বিষয়টির খোঁজখবর নেয়া হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, গত ১৯ জুলাই অপহৃতের সৎভাই পল্লী চি‌কিৎস‌ক ও স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সদস্য অংক‌ থোয়াই (উগ্যা) মারমাকে (৫০) নিজবাড়ি থেকে অপহরণ করে নিয়ে যায় অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা। পরে তাকে গুলি করে হত্যা করে মরদেহ ইটভাটা এলাকায় ফেলে যায়।

আরও খবর