চট্টগ্রাম বন্দর থেকে সকলের চোখ ফাঁকি দিয়ে বিদেশি সিগারেটের চালান খালাস হয়েছে এমন তথ্যের ভিত্তিতে গত ২২ জুলাই দিবাগত রাতে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলা থেকে সিগারেটের বদলে দুই কনটেইনার বিদেশি মদ জব্দ করেছিল র‌্যাব ও কাস্টমস কর্মকর্তারা।

চট্টগ্রাম কাস্টমসের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সেই গোপন তথ্যদাতা সহকারি রাজস্ব কর্মকর্তা রাশেদুর রহমানকে বিদেশ থেকে হোয়্যাটসঅ্যাপে কল করে প্রাণনাশের হুমকি দিয়েছে এক ব্যক্তি।

২২ জুলাই মদ জব্দের ঘটনার পরদিন ২৩ জুলাই তাকে ফোনে এই হুমকি দেওয়া হয়। পরদিন ২৪ জুলাই কাস্টমসের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের পরামর্শে রাশেদুর রহমান নগরীর ইপিজেড থানায় নিজের নিরাপত্তা চেয়ে একটি সাধারণ ডায়রি (জিডি) করেন। ইপিজেড থানা পুলিশ আদালতের কাছে ওই জিডি তদন্তের অনুমতি চাইলে আদালত তা মঞ্জুর করেন এবং ইপিজেড থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) রানা প্রতাপ জিডির তদন্ত শুরু করেন।

ইপিজেড থানার ওসি কবিরুল ইসলাম বলেন, ‘গত ২৪ জুলাই একজন কাস্টমস কর্মকর্তা নিরাপত্তা চেয়ে থানায় জিডি করেছিলেন। আদালতকে জানিয়ে আমরা তার তদন্ত করছি। ঘটনাটি তদন্ত করে আমরা নিশ্চিতভাবে বলতে পারব আসলে কী ঘটেছে এবং কারা করেছে।’

উল্লেখ্য, জিডি করার দিন ২৪ জুলাই চট্টগ্রাম বন্দরে বিপুল পরিমাণ মদ বহনকারী আরও একটি কনটেইনার পাওয়া যায় এবং তার পরের দিন ২৫ জুলাইও বন্দরে আরো ২ কনটেইনার ভর্তি মদ পাওয়া যায়। সবমিলিয়ে মোট ৫টি মদের কনটেইনার পাওয়ায় গেছে।

আরও খবর