চট্টগ্রাম নগরীর জেএমসেন হলের পূজামণ্ডপে হামলার চেষ্টা ও ব্যানার-পোস্টার ছেঁড়াসহ পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগে ৯৬ জনকে আটক করেছে কোতোয়ালী খানা পুলিশ।

শুক্রবারের ঘটনার প্রতিবাদে শনিবার (১৬ অক্টোবর) আধাবেলা হরতাল পালন করেছেন হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ ও জাতীয় হিন্দু মহাজোট।

হরতালের সমর্থনে সকাল থেকে জেএমসেন হল এলাকায় হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা জড়ো হয়ে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন। শুক্রবারের ন্যাক্কারজনক ঘটনার নিন্দা জানিয়ে নেতারা বলেন, হিন্দুরা শান্তিপ্রিয়। তারা সব ধর্মের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। কিন্তু গুজব রটিয়ে হিন্দুদের ওপর হামলা চালানো হচ্ছে, প্রতিমা ভাঙা হচ্ছে। এতে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের ভাবমূর্তি প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে।

এর আগে শুক্রবার জুমার নামাজের পর একদল লোক জেএমসেন হল পূজা মণ্ডপের গেইট ভেঙে ভেতরে প্রবেশের চেষ্টা চালালে পুলিশ টিয়ার শেল নিক্ষেপ ও ধাওয়া দিয়ে হামলাকারীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

এঘটনায় নিরাপত্তা প্রশ্নে পূজা উদযাপন পরিষদের নেতারা প্রতিমা বিসর্জন স্থগিত করেন। পরে পুলিশ পাহারায় প্রতিমা বিসর্জন দেওয়া হয়।

ঘটনার প্রতিবাদে বাংলাদেশ হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের নেতা অ্যাডভোকেট রানা দাশগুপ্ত শনিবার চট্টগ্রামে আধাবেলা হরতালের ডাক দেন।

চট্টগ্রাম নগর পুলিশের উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) বিজয় বসাক বলেন, সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে পুলিশ মাঠে আছে। কাউকে পরিস্থিতি অস্থিতিশীল করার সুযোগ দেওয়া হবে না। যারাই পূজামণ্ডপে হামলার চেষ্টা করেছে তাদের সবাইকে আইনের আওতায় আনা হবে। তবে নিরিহ কেউ যেন হয়রানির শিকার না হন সে বিষয়ে সতর্কতার সাথে কাজ করতে হচ্ছে।

কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ নেজাম উদ্দিন জানান, ভিডিও ফুটেজ দেখে শনিবার দুপুর ১টা পর্যন্ত ৯৬ জনকে আটক করা হয়েছে। অভিযান অব্যাহত রয়েছে। অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পুলিশ প্রস্তুত রয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এখনো মামলা হয়নি। মামলার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন।

আরও খবর