মানবজাতির অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে প্রয়োজন বেশি বেশি গাছ লাগানো। শুধু বৃক্ষরোপণই নয়, গাছ টিকিয়ে রাখতে বনবিভাগকে আরও বেশি উদ্যোগী হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার আশরাফ উদ্দিন।

বৃহস্পতিবার (৪ আগস্ট) সকালে নগরীর সিআরবিতে ১৫ দিন ব্যাপী অনুষ্ঠিত বৃক্ষমেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য এসব কথা বলেন তিনি।

বনাঞ্চল ধ্বংস হওয়ায় পার্বত্যাঞ্চলে ব্যাপকহারে কমেছে বন্যপ্রাণী। তাই এ বছর চট্টগ্রামে ১ কোটি ২০ লাখ গাছের চারা রোপণের উদ্যোগ নিয়েছে বনবিভাগ।

‘বৃক্ষপ্রাণে প্রকৃতি-প্রতিবেশ, আগামী প্রজন্মের টেকসই বাংলাদেশ’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে চট্টগ্রামে ১৫ দিন ব্যাপী এই মেলার আয়োজন করে উত্তর জেলা বন বিভাগ। আয়োজনে সার্বিক সহযোগিতা করেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন।

চট্টগ্রাম অঞ্চলের বন সংরক্ষক বিপুল কৃষ্ণ দাস বলেন, ‘৫০ টি স্টলে এবারের মেলায় বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় ৫০ হাজার গাছ এনেছেন সরকারি, বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের মালিকগণ।’

এর আগে রেলওয়ে হাসপাতালের সামনে থেকে বর্ণাঢ্য একটি র‍্যালি বের হয়। র‍্যালিটি বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে সিআরবির শিরীষতলায় আলোচনা সভায় মিলিত হয়।

চট্টগ্রাম অঞ্চলের বন সংরক্ষক বিপুল কৃষ্ণ দাসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন পুলিশের কমিশনার কৃষ্ণ পদ রায়, চট্টগ্রাম রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি জাকির হোসেন খান, জেলা প্রশাসনের পক্ষে স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক বদিউল আলম, চট্টগ্রামের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চট্টগ্রাম মহানগর কমান্ডের কমান্ডার মোজাফফর আহাম্মদ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মোজাম্মেল হোসেন শাহ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার আশরাফ উদ্দিন বলেন, ‘পার্বত্যাঞ্চলে বন ও গাছ কমে যাওয়ায় এর প্রভাব পড়েছে বন্যপ্রাণীর ওপর। কমে যাচ্ছে পাহাড়ের প্রাণীও। তাই গাছ যেন টিকে থাকে সেই উদ্যোগ নিতে হবে। মানুষকে সম্পৃক্ত করতে না পারলে বন টিকিয়ে রাখা কষ্টকর হবে। মানবজাতির অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে বেশি বেশি গাছ লাগাতে হবে।’

চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন পুলিশের কমিশনার কৃষ্ণ পদ রায় বলেন, ‘পরিকল্পিত উপায়ে গাছ লাগাতে হবে। প্রকৃতিকে বাসযোগ্য রাখতে চাইলে বৃক্ষরোপণের ভূমিকা নেই। গাছের প্রতি ভালোবাসা সৃষ্টির উদ্যোগ নিতে হবে।’

আরও খবর