তালেবান ইস্যুতে মতপার্থক্যের কারণে দক্ষিণ এশীয় আঞ্চলিক সহযোগিতা সংস্থার (সার্ক) দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠক বাতিল করা হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়ার্ক শহরে আগামী শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। খবর এনডিটিভি।

বিশ্বস্ত সূত্র জানিয়েছে, সার্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের এই বৈঠকে তালেবানরা আগানিস্তানের পক্ষে প্রতিনিধিত্ব করুক- এমন দাবি করেছিল পাকিস্তান। তবে ভারতসহ কয়েকটি দেশ পাকিস্তানের সেই প্রস্তাবের বিরোধীতা করে। ফলে তালেবান ইস্যুতে সার্কের সদস্য দেশগুলো ঐক্যমতে পৌঁছাতে না পারার কারণে বৈঠকটি বাতিল করা হয়।

এই বৈঠকের আয়োজক দেশ ছিল নেপাল। জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনের পাশাপাশি প্রতিবার সার্ক দেশের এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

জানা গেছে, বৈঠকের সময় আফগানিস্তানের জন্য একটি খালি চেয়ার রাখার বিষয়ে সার্কের অধিকাংশ সদস্য একমত হয়েছিল। কিন্তু পাকিস্তান এতে রাজি না হওয়ায় বৈঠকটি বাতিল করা হয়েছে।

সার্কের সচিবালয় সংবাদ সংস্থা এএনআই’কে জানিয়েছে, আজ পর্যন্ত সব সদস্য রাষ্ট্রের সম্মতির অভাবের কারণে বৈঠকটি বাতিল করা হয়েছে।

গত ১৫ আগস্ট আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখলের পর তালেবানকে আজ পর্যন্ত স্বীকৃতি দেয়নি ভারত। এমনকি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ও তালেবানের নতুন শাসনব্যবস্থাকে স্বীকৃতি দেয়নি। এছাড়াও দেশটির শীর্ষ মন্ত্রী জাতিসংঘের কালো তালিকাভুক্ত করেছে।

এর আগে, গত সপ্তাহে সাংহাই কোঅপারেশন অরগানাইজেশনের (এসসিও) সভায় ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেছিলেন, তালেবান অন্তর্ভুক্তিমূলক সরকার নয়। তাই তালেবানকে স্বীকৃতি দেওয়ার আগে অবশ্যই বিশ্বকে আফগানিস্তানের শাসন ব্যবস্থা সম্পর্কে চিন্তা করতে হবে। কাবুলের সরকারে নারী ও সংখ্যালঘুদের কোনো প্রতিনিধি নেই বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

সার্ক দক্ষিণ এশিয়ার ৮টি দেশের সহযোগিতামূলক জোট। বাংলাদেশ, ভুটান, ভারত, মালদ্বীপ, নেপাল, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা ও আফগানিস্তান এই জোটের সদস্য রাষ্ট্র।

আরও খবর