সাত বছর পর গ্র্যান্ড স্লামের ফাইনালে উঠেছিলেন ভিক্টোরিয়া আজারেঙ্কা। তাও পুরো টুর্নামেন্টে দুর্দান্ত খেলে। কিন্তু ফাইনালে এসে থেমে গেলেন আজারেঙ্কা। বেলারুশ তারকাকে হারিয়ে ইউএস ওপেনের শিরোপা জিতেছেন নাওমি ওসাকা। এ নিয়ে তৃতীয়বার গ্র্যান্ড স্লাম জয়ের স্বাদ পেলেন জাপানিজ সুন্দরী। ইউএস ওপেন জিতলেন দ্বিতীয়বার।

২২ বছর বয়সী তরুণী এবার যে দ্বিতীয় ইউএস ওপেনের স্বাদ পেতে যাচ্ছে সেটা ভাবেননি অনেকেই। ফাইনালে ফেভারিট তত্ত্বে অনেকটা এগিয়ে ছিলেন আজারেঙ্কা। টানা ১০ ম্যাচ জিতে সেমিফাইনালে সেরেনা উইলিয়ামসকে পাত্তাই দেননি আজারেঙ্কা। সাত বছর পর গ্র্যান্ড স্লামের ফাইনালে উঠা বেলারুশ তারকার হাতেই দেখা হচ্ছিল শিরোপাটা। ফাইনালের শুরুতেও দুর্দান্ত খেলেছেন আজারেঙ্কা।

প্রথম সেটে পাত্তাই দেননি ওসাকাকে। ১-৬ ব্যবধানে প্রথম সেট জিতে নেন বেলারুশ তারকা। দ্বিতীয় সেটেও একটা সময় ৩-০ গেমে এগিয়ে ছিলেন। তারপরই যে ওসাকা ঘুরে দাঁড়াবেন সেটা কে-ই বা ভেবেছিলেন!

খাদের কিনারা থেকে দুর্দান্তভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে শেষ পর্যন্ত আজারেঙ্কাকে ১-৬, ৬-৩, ৬-৩ গেমে হারিয়ে স্বপ্নের শিরোপা জিতেছেন জাপানি তরুণী। পিছিয়ে পড়ার পর খেলায় কিছুটা পরিবর্তন এনেছিলেন ওসাকা। আজারেঙ্কাকে জবাব দিচ্ছিলেন জোড়ালো শটে। আড়াআড়ি না মেরে সোজা শট খেলে যাচ্ছিলেন জাপানি তারকা। অনেকক্ষণ এটা চালিয়ে গেলেন বলেই হয়তো ২১ বছর বয়সী ওসাকার সঙ্গে শক্তির লড়াইয়ে কুলিয়ে উঠতে পারলেন না ৩১ বছর বয়সী আজারেঙ্কা। আজারেঙ্কার গতি আস্তে আস্তে কমতে থাকে, এই সুযোগেই ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেন ওসাকা।

ওসাকার এই বিজয় হয়তো কৃষ্ণাঙ্গদের ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ আন্দোলনেরও একটা বিজয়! একভাবে বিচার করলে বলতে হবে, পুরো টুর্নামেন্টে বর্ণবাদের শিকার হওয়ার মানুষদের মুখপাত্র হয়ে খেলেছেন ওসাকা।

আরও খবর