চট্টগ্রামে টানা দুই দিন ছয়শোর ওপরেই শনাক্ত হলো করোনা আক্রান্ত। ৬১১ করোনা শনাক্তের দিনে করোনা কেড়েও নিলো চট্টগ্রামের ৪ বাসিন্দার প্রাণ। নতুন শনাক্তদের মধ্যে ৪৬৫ জন নগরের এবং ১৪৬ জন বিভিন্ন উপজেলার। মারা যাওয়া ৪ জনই উপজেলার।

এ নিয়ে চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্ত রোগী গিয়ে দাঁড়াল ৬২ হাজার ২০০ জন। চট্টগ্রাম নগরীর মোট করোনা আক্রান্ত দাঁড়াল ৪৮ হাজার ২৯৫ জনে, উপজেলায় ১৩ হাজার ৯০৫ জন।

করোনা কেড়ে নিয়েছে ৭৩৫ জনের প্রাণ। এদের মধ্যে ৪৮৪ জন চট্টগ্রাম নগরের। আর বিভিন্ন উপজেলায় মারা গেছেন ২৫১ জন।

বুধবার (৭ জুলাই) চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে। প্রতিবেদন অনুযায়ী, চট্টগ্রামের সরকারি-বেসরকারি ১০টি ও কক্সবাজারের ১টি ল্যাবে ১ হাজার ৬৩৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। তাতে ৬১১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

এর মধ্যে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেস (বিআইটিআইডি) ল্যাবে ৪১৪টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে করোনার উপস্থিতি মিলে দিনের সর্বোচ্চ ১৫৫ জনের দেহে। এদের মধ্যে নগরের ১২০ জন এবং বিভিন্ন উপজেলার ৩৫ জন। চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) ল্যাবে ১৩৩টি নমুনা পরীক্ষা করে ৪৫ জনকে করোনার জীবাণু বাহক হিসেবে শনাক্ত করা হয়। এদের মধ্যে নগরের ৪১ জন। বাকি ৪ জন বিভিন্ন উপজেলার বাসিন্দা।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে গত ২৪ ঘণ্টায় ১১৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। তাতে করোনা পজিটিভ আসে ৫৯ জনের শরীরে। এদের মধ্যে ৩৫ জন নগরের এবং ২৪ জন চট্টগ্রামের বিভিন্ন উপজেলার। চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিম্যাল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় (সিভাসু) ল্যাবে ২৪৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। তাতে ৭৭ জনের দেহে ভাইরাসটির উপস্থিতি পাওয়া যায়। যাদের মধ্যে ৪৬ জন নগরের অধিবাসী, বাকি ৩১ জন বিভিন্ন উপজেলার বাসিন্দা।

চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের রিজিওনাল টিবি রেফারেল ল্যাবরেটরিতে (আরটিআরএল) ৪৫ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। তাতে ২৭ জনের করোনা পজিটিভ আসে। তাদের মধ্যে ২৪ জনই নগরের, ৩ জন উপজেলার। নগরীর বিভিন্ন ল্যাবে এন্টিজেন টেস্ট করানো হয় ২৬১টি নমুনা। তাতে করোনা পজিটিভ আসে ৮৭ জনের। এর মধ্যে ৫৬ জন নগরের এবং ৩১ জন বিভিন্ন উপজেলার।

কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাবে গত ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামের ৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করে উপজেলার ২ জনের নমুনায় করোনা পজিটিভি পাওয়া যায়।

উপজেলায় করোনা আক্রান্তদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি শনাক্ত রোগী পাওয়া যায় সীতাকুণ্ডে। সেখানে ৩২ জনের দেহে ভাইরাসটির জীবাণু পাওয়া যায়। এছাড়া মিরসরাইয়ে ২৪ জন, রাউজানে ১৯ জন, হাটহাজারীতে ১৮ জন, পটিয়ায় ১৪ জন, ফটিকছড়িতে ১১ জন, আনোয়ারায় ও রাঙ্গুনিয়ায় ১০ জন করে, সাতকানিয়ায় ৩ জন, বাঁশখালীতে ২ জন এবং লোহাগাড়ায়, চন্দনাইশ ও সন্দ্বীপে ১ জন করে ​করোনা শনাক্ত হয়।

চট্টগ্রাম বার্তা

আরও খবর