মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে দায়ের হওয়া মামলায় নায়িকা পরীমণির চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মামুনুর রশিদের আদালত এই আদেশ দেন। অপর দিকে বনানী থানা সূত্রে জানা গেছে তার বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া মামলা ডিবি পুলিশ তদন্ত করবে।

বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) পুলিশের সাত দিনের রিমান্ড আবেদন শুনানি শেষে আদালত চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এই মামলার আরেক আসামি আশরাফুল আলম দীপুকেও চার দিনের রিমান্ড দিয়েছেন আদালত।

রিমান্ড আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন ঢাকার মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট আব্দুল্লাহ আবু। আসামিপক্ষে অ্যাডভোকেট মজিবুর রহমানসহ কয়েকজন আইনজীবী রিমান্ড বাতিল করে জামিন আবেদন করেন।

এর আগে বুধবার (০৪ আগস্ট) বিকেল থেকে অভিযান চালিয়ে রাত সোয়া ৮টার দিকে বনানীর বাসা থেকে তাকে র‌্যাব সদর দপ্তরে নিয়ে যাওয়া হয়।

বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে বনানীর লেক ভিউ ১৯/এ নম্বর রোডের ১২ নম্বর বাড়িতে র‌্যাব সদস্যরা অভিযানে গেলে পরীমণি তাৎক্ষণিক ফেসবুক লাইভে এসে বিষয়টি সবাইকে জানান। লাইভে তিনি বলেন, অজ্ঞাতপরিচয় বিভিন্ন পোশাকের কয়েকজন ব্যক্তি বাসার বাইরে থেকে কলিং বেল দিয়ে দরজা খুলতে বলছে।

ফেসবুক লাইভে থাকা অবস্থায়ই তিনি বনানী থানা-পুলিশ, ডিবি ডিসি হারুনুর রশিদসহ কর্মকর্তা ও তার পরিচিতজনদের কাছে ফোন করে তাকে বাঁচানোর আহ্বান জানান।

র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক খন্দকার আল মঈন জানান, সুনির্দিষ্ট কয়েকটি অভিযোগের ভিত্তিতে চিত্রনায়িকা পরীমণির বাসায় র‌্যাব অভিযান পরিচালনা করেছে। তার ঘর তল্লাশি করে ফ্ল্যাটের কেবিনেট থেকে বিদেশি মদ, লাইসার্জিক অ্যাসিড ডাইইথ্যালামাইড (এলএসডি) এবং আইস উদ্ধার করা হয়।

অভিযানে অংশ নেওয়া র‌্যাব কর্মকর্তারা জানান, সারা ফ্ল্যাট জুড়ে থরে থরে সাজানো ছিল মদের বোতল। তার বাসার এমন কোনো জায়গা নেই, যেখানে মদ নেই। তার কাছে দেশি-বিদেশি নামি দামি ব্র্যান্ডের মদ ছিল, যা বাংলাদেশে খুব কমই আমদানি হয়। পরীমণির ড্রইংরুম, ডাইনিং, বেডরুম এমনকি বাথরুম থেকেও বিদেশি মদ উদ্ধার করা হয়েছে।

পরীমণি ঢাকার অভিজাত ক্লাবগুলোতে নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে সাঙ্গ-পাঙ্গ নিয়ে প্রবেশ করে সবাইকে বিব্রত করার অভিযোগ আছে।

চট্টগ্রাম বার্তা/পিএ

আরও খবর