পুরো সপ্তাহের জন্য বাজার করতে সাপ্তাহিক ছুটির দিনে সকাল সকাল বাজারে উপস্থিত হন অনেকেই। কিন্তু বাজারে কাঁচা সবজিসহ মাছ, মাংস, মুরগি, ডিম সব কিছুরই অতিরিক্ত দাম দেখে সপ্তাহের বাজারের বদলে শুধু দুই দিনের বাজার করে ফিরেন অধিকাংশ জনই। বাজারে সব কিছুর চড়া দামে হতাশা প্রকাশ করেছেন বেশিরভাগ মধ্যবিত্ত শ্রেণির ক্রেতারা। সব মিলিয়ে সাপ্তাহিক ছুটির দিন শুক্রবারে বাজারে আসা প্রায় সব ক্রেতারাই দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি দেখে পুরো ব্যাগের পরিবর্তে ব্যাগের অর্ধেকটা বাজার করে ফিরছেন।

রেয়াজউদ্দিন বাজারে চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে সবজি। শিম বিক্রি হচ্ছে ১০০-১১০ টাকা, টমেটো ও গাজর ৯০-১০০ টাকায়। এছাড়া বরবটি, বেগুন, কাকরোল, করলা, ধুন্দল, ঢেঁড়স, পটল, ঝিঙ্গা, চিচিঙ্গা, লতি, ছোট কচু, পেঁপে, লাউ ও কুমড়া বিক্রি হচ্ছে ৪০-৬০ টাকায়।

অন্যদিকে, মাছের বাজারেও প্রতিটি মাছ তুলনামূলক বেশি দামে বিক্রি হতে দেখা গেছে। বাজারে পাঙ্গাশ মাছ প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৩০ থেকে ১৪০ টাকায়। শিং মাছ (মাঝারি) ৪০০ থেকে ৬০০ টাকা কেজি, কই মাছ ২০০ থেকে ২২০ টাকা, চিংড়ি মাঝারি ৫০০ টাকা, ইলিশ বড় ১২০০ থেকে ১৪০০ টাকা, ইলিশ ছোট ৬৫০ থেকে ৭৫০, এক কেজি ওজনের ইলিশ ৯৫০ টাকা, রুই মাছ ২৮০ থেকে ৩০০ টাকা, কাতল ২৬০ থেকে ২৮০ টাকা, তেলাপিয়া ১৫০ টাকা প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া ডিম প্রতি ডজন বিক্রি হচ্ছে ১২০ টাকায়।

মাংসের বাজারেও সব প্রকার মাংস বেশি দামে বিক্রি হতে দেখা গেছে, শুক্রবারের সকালে বাজারে খাসির মাংস বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৮০০ টাকা, গরুর মাংস ৫৮০ টাকা, বয়লার মুরগি প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকা, লেয়ার ২৩০, পাকিস্তানি মুরগির কেজি ৩০০ টাকা আর দেশি মুরগি বিক্রি হচ্ছে ৪৫০ টাকা কেজিতে।

 

আরও খবর