বিধিনিষেধ শিথিলের প্রথম দিনে চির চেনা রূপে ফিরেছে চট্টগ্রাম নগরের বিভিন্ন সড়ক। সকাল থেকে স্বাভাবিক দিনের মতো বিভিন্ন গন্তব্যের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাচ্ছে বাসসহ ছোটোবড়ো প্রায় সব ধরনের গণপরিবহন। আগের মতো আবারও উচ্চস্বরে যাত্রীদের ডাকতে দেখা গেছে যানবাহন চালক ও হেলপারদের। অন্যদিকে দীর্ঘদিন পর আগের নির্ধারিত ভাড়ায় যাতায়াত করতে পারায় খুশি যাত্রীরা।

বুধবার (১১ আগস্ট) নগরের টাইগারপাস, জিইসি, প্রবর্তক মোড়, ২ নম্বর গেট ও অক্সিজেনসহ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে এ চিত্র দেখা যায়।

এ সময় সড়কগুলোতে বাস, মিনিবাস, হিউম্যান হলার, ট্যাম্পু, মাহিন্দ্রা ও সিএনজিচালিত অটোরিকশাসহ প্রায় সব ধরনের গণপরিবহন চলতে দেখা যায়। তবে গণপরিবহন চালু হওয়ায় সড়কে রিকশার উপস্থিতি কম দেখা যায়। বেশিরভাগ রিকশাকে মোড়ে মোড়ে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়।

তবে একই সময়ে কোনো কোনো গাড়িতে আসনের অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহন করতেও দেখা যায়। জানতে চাইলে বাসচালক নুর হোসেন বলেন, আপনার (প্রতিবেদক) সামনেই তো যাত্রীরা কীভাবে উঠে গেছে দেখছেন। লোকজন তাড়াতাড়ি পৌঁছার জন্য উঠে যায়, আবার ট্রাফিক পুলিশ আমাদের জরিমানা করে।

করোনাভাইরাস সংক্রমণরোধে সরকারঘোষিত লকডাউন শিথিলের পর বুধবার থেকে চালু হয়েছে গণপরিবহন। এক্ষেত্রে সরকারের নির্দেশনা হচ্ছে- আসন সংখ্যার অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহন করা যাবে না। স্বাভাবিক ভাড়ায় চলবে গণপরিবহন চলবে। ৬০ শতাংশ বর্ধিত ভাড়া আর প্রযোজ্য হবে না। গণপরিবহনের যাত্রী, চালক, সুপারভাইজার, কন্ডাক্টর, হেলপার-ক্লিনার এবং টিকিট বিক্রয় কেন্দ্রের দায়িত্বে নিয়োজিত ব্যক্তিদের মাস্ক পরিধান নিশ্চিত করতে হবে। তাদের জন্য রাখতে হবে প্রয়োজনীয় হ্যান্ড স্যানিটাইজার।

আরও খবর