ভাসানচর থেকে পালিয়ে আসা সাত নারী ও চার শিশুসহ ১৮ রোহিঙ্গাকে আটক করেছে জোরারগঞ্জ থানা পুলিশ। আটক রোহিঙ্গারা কুতুপালং ক্যাম্পে যাওয়ার উদ্দেশ্যে ভাসানচর থেকে এসেছে বলে জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছে। ভাসানচর থেকে তারা রিজার্ভ ট্রলার নিয়ে মিরসরাই বঙ্গুবন্ধু শিল্পাঞ্চলে এসে নামে।

রোববার (১১ জুলাই) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে স্থানীয়দের দেওয়া খবরের ভিত্তিতে তাদের আটক করে জোরারগঞ্জ থানা পুলিশ।

জোরারগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নূর হোসেন মামুন, ভাসানচর থেকে পালিয়ে এসে আটক রোহিঙ্গারা বঙ্গবন্ধু শিল্পাঞ্চল এলাকায় নামে। ভোর সাড়ে ৫টার দিকে স্থানীয়দের দেওয়া সংবাদের ভিত্তিতে আমরা তাদের আটক করি।

আটক কৃতরা হলো, মো. আলী উল্লাহ (২৫) ও তার স্ত্রী নজুমা বেগম (২০), তাদের মেয়ে শমসুন্নাহার (৩), আব্দুর রশিদ (৩০), আব্দুল মজিদ (২১) ও তারস্ত্রী সামিরা (১৯), মনসুর আলম (২৮) ও তার স্ত্রী জমিলা বেগম (২৬) তাদের চার সন্তান ইমরান খান (৮), হামিদা বেগম (৭), মোশরফা বেগম (৬), সামিয়া বেগম (২), মর্জিনা আকতার ও তার মেয়ে মোনতাহা সুলতানা রিনা (৬), রোকেয়া আকতার (২১) তার ছেলে আব্দুর রহমান (২), আসমিদা (১৯) ও উম্মে হাবিবা (২১)।

এ প্রশ্নের জবাবে ওসি মামুন বলেন, রোহিঙ্গারা কুতুপালং ক্যাম্পে তাদের আত্মীয় স্বজনদের কাছে ফিরে যাওয়ার জন্য ভাসানচর থেকে তারা রিজার্ভ ট্রলার নিয়ে মিরসরাই বঙ্গুবন্ধু শিল্পাঞ্চলে এসে নামে। তাদের বিরুদ্ধে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়া চলছে।

প্রসঙ্গে, এর আগে গত ২২ জুন একই এলাকা থেকে ১৪ রোহিঙ্গাকে আটক করে পুলিশ। তারা দালালদেরকে জন প্রতি ২০ হাজার টাকা দিয়েছিল মালয়েশিয়া পৌঁছে দিতে। দালালরা তাদেরকে জোরারগঞ্জ মেরিনড্রাইভ সড়কে নামিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায়। এর আগে ৩০ মে ৩ দালালসহ ১০ জন রোহিঙ্গাকে আটক করেছিল পুলিশ।

আরও খবর