সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যা মামলার সাক্ষ্য গ্রহণের তারিখ পুনঃনির্ধারণ করেছে কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালত। সোমবার (১৬ আগস্ট) সোমবার দুপুরে আদালতের বিচারক মোহাম্মদ ইসমাইল সিনহা মো. রাশেদ হত্যা মামলার স্বাক্ষ্য গ্রহনের তারিখ পুনঃনির্ধারণ করে এক আদেশ জারি করেন।

আদালত মামলার বাদিসহ ১৫ জন স্বাক্ষীকে আগামী ২৩, ২৪ ও ২৫ আগস্ট স্বাক্ষী দিতে নোটিশ জারি করেছে।

এই আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর পিপি এড ফরিদুল আলম চট্টগ্রাম প্রতিদিনকে বলেন, ‘গত জুলাই মাসের ২৬ ২৭ ও ২৮ তারিখ এই মামলার স্বাক্ষ্য গ্রহনের তারিখ নির্ধারিত। করোনার মোকাবিলায় সরকার ঘোষিত লকডাউনের কারণে হাইকোর্টের নির্দেশে সারাদেশের মতো কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের স্বাভাবিক কার্যক্রম বন্ধ থাকে। এ কারণে ওই তারিখে চাঞ্চল্যকর এ হত্যা মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু হতে পারেনি। কিন্তু গত ১১ আগস্ট থেকে লকডাউন তুলে নিলে আদালতের কার্যক্রম শুরু হওয়ায় জেলা ও দায়রা জজ আগামী ২৩, ২৪ ও ২৫ আগস্ট নতুন করে এই মামলার স্বাক্ষ্য গ্রহনের তারিখ ধার্য্য করে করেন। ওই তারিখে বাদিসহ স্বাক্ষীদের স্বাক্ষ্য গ্রহন শুরু করবেন আদালত।’

এর আগে ২০২০ সালের ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে গাড়ি তল্লাশীকে কেন্দ্র করে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাখেদ খান।

এ ঘটনায় গত ৫ আগস্ট নিহত সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস বাদি হয়ে বাহারছড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের সাবেক ইনচার্জ পরিদর্শক লিয়াকত আলীকে প্রধান ও টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ নয় জন পুলিশ সদস্যকে আসামি করে মামলা দায়ের করে। আদালত মামলাটির তদন্ত করতে র‍্যাবকে আদেশ দেন।

এরপর গত ৬ আগস্ট প্রধান আসামি লিয়াকত আলী ও টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ ৭ পুলিশ সদস্য আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। পরবর্তীতে সিনহা হত্যার ঘটনায় জড়িত থাকার সংশ্লিষ্টতা পাওয়ার অভিযোগে পুলিশের দায়ের মামলার ৩ জন সাক্ষী এবং শামলাপুর চেকপোস্টের দায়িত্বরত আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) ৩ সদস্যকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। একই অভিযোগে পরে গ্রেফতার করা হয় টেকনাফ থানা পুলিশের সাবেক সদস্য কনস্টেবল রুবেল শর্মাকেও।

গত বছরের ১৩ ডিসেম্বর ১৫ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশীট জমা দেন র‌্যাব।

উক্ত আলোচিত মামলার অভিযোগ গঠন ও ৬ আসামীর জামিন শুনানি ছিল সোমবার। বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত শুনানি শেষে আদালত ২৬, ১৭ ও ২৮ জুলাই ১০ সাক্ষীর জবানবন্দি গ্রহনের আদেশ দেন।

আরও খবর