তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, সদ্য প্রয়াত অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী স্যারের মতো একজন গুণী শিক্ষকের অভাব সত্যিই অপূরণীয়। বর্তমানে যারা শিক্ষকতার মতো মহান পেশায় জড়িত তাদের অনুরোধ করবো আপনারা আলী স্যারের মত ন্যায়-নিষ্ঠাবান ও নীতিবান শিক্ষক হোন। প্রফেসর মোহাম্মদ আলী ও তাঁর স্ত্রী প্রফেসর ড. খালেদা হানুম বর্তমান প্রজন্মের জন্য অনুকরণীয় আদর্শ।

মঙ্গলবার (৬ জুলাই) বেলা সাড়ে ১১টায় বাংলাদেশ সোসাইটি ফর প্রাইভেট ইউনিভার্সিটি একাডেমিকস (বিএসপিইউএ) আয়োজিত চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী ও তাঁর স্ত্রী অধ্যাপক ড. খালেদা হানুমের স্মরণে আয়োজিত ভার্চুয়াল স্মরণসভার প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন মন্ত্রী।

মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ আরও বলেন, শিক্ষার্থীরা শুধু পড়াশোনার মধ্যেই নয়, বরং সবাই যেন বিভিন্ন কারিগরী দক্ষতা অর্জন করতে পারে সেদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানিত শিক্ষকদের নজর রাখা উচিত। যাতে বহির্বিশ্বে এদেশের ছাত্র-ছাত্রীরা নানাভাবে অবদান রাখতে পারে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সদস্য অধ্যাপক ড. সাজ্জাদ হোসেন ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীন আখতার। এ সময় দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর শিক্ষার মান আধুনিকায়নে অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী ইউজিসি সদস্য হিসেবে নিরলসভাবে কাজ করেছেন বলে উল্লেখ করেন অধ্যাপক সাজ্জাদ।

এছাড়া অন্যান্য আলোচকদের মধ্যে নদার্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. আবু ইউসুফ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ, সাউদার্ন বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশের উপাচার্য প্রফেসর ইঞ্জিনিয়ার মোজাম্মেল হক, আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রামের ট্রেজারার (মনোনীত) অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির এবং অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও অর্থনৈতিক বিশেষজ্ঞ ড. শফিক রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বিএসপিইউএ’র সভাপতি অধ্যাপক ড. ফরিদ সোবহানির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিএসপিইউএ’র সহসভাপতি অধ্যাপক ড. ইসরাত জাহান। তিনি সংক্ষেপে অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী ও অধ্যাপক ড. খালেদা হানুমের সংক্ষিপ্ত জীবনী তুলে ধরেন। সভাপতির বক্তব্যে অধ্যাপক ড. ফরিদ সোবহানি বলেন, উজ্জ্বল নক্ষত্রের মতো দুজন মানুষ ছিলেন অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী ও অধ্যাপক ড. খালেদা হানুম।

অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী ও অধ্যাপক ড. খালেদা হানুমের ব্যক্তিজীবনী নিয়ে স্মৃতিচারণ করেন তাঁদের নাতনী তামারা দিলরুবা আলী।

বিএসপিইউএ’র মিডিয়া অ্যাণ্ড পাবলিক রিলেশন সেক্রেটারি মোহাম্মদ এমদাদ হোসেন ও কালচারাল এফেয়ার্স সেক্রেটারি বদরুল হুদা সোহেলের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে স্মৃতিচারণ ও দোয়া পরিচালনা করেন সেন্ট্রাল শরিয়া বোর্ড অব ইসলামিক ব্যাংকস বাংলাদেশের চেয়ারম্যান এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবি বিভাগের অধ্যাপক ড. গিয়াস উদ্দিন তালুকদার।

উল্লেখ্য, অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সদস্য এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম, নর্দান বিশ্ববিদ্যালয় ও সাউদার্ন বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশের উপাচার্য হিসেবে কর্মজীবন অতিবাহিত করেন। তাঁর সহধর্মিণী অধ্যাপক ড. খালেদা হানুম চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের চেয়ারম্যান ছিলেন।

আরও খবর