চট্টগ্রাম মহানগর যুবদলের যুগ্ম সম্পাদক ও সাবেক ছাত্রনেতা সৈয়দ মনজুর হোসেন আর নেই (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজেউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৪৮ বছর। তিনি স্ত্রী, ২ ছেলেসহ অসংখ্য আত্মীয় স্বজন ও রাজনৈতিক সহকর্মী রেখে গেছেন।

সোমবার (১৬ আগস্ট) সন্ধ্যায় স্ট্রোক করলে তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। মঙ্গলবার বাদে জোহর বায়েজিদ বোস্তামী (র.) মাজার প্রাঙ্গণে জানাজা শেষে তার লাশ মাজার সংলগ্ন কবরস্থানে দাফন করা হয়।

এদিকে সৈয়দ মন্জুর হোসেনের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান মীর মো. নাছির উদ্দীন, বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা বেগম রোজী কবির, গোলাম আকবর খন্দকার, এস এম ফজলুল হক, চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবের রহমান শামীম, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির আহবায়ক ডা. শাহাদাত হোসেন, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহবায়ক আবু সুফিয়ান, নগর যুবদলের সভাপতি ও যুবদলের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি মোশাররফ হোসেন দীপ্তি, নগর যুবদলের সাধারণ সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সম্পাদক মোহাম্মদ শাহেদ, ছাত্রদলে নগর কমিটির আহ্বায়ক সাইফুল আলম, সদস্য সচিব শরীফুল ইসলাম তুহিনসহ অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

শোক বার্তায় নেতৃবৃন্দ বলেন, সৈয়দ মন্জুর হোসেনের মৃত্যুতে আমরা গভীরভাবে শোকাহত ও ব্যথিত। তিনি চট্টগ্রাম মহানগর যুবদলকে শক্তিশালী, গতিশীল ও সুদৃঢ় ভিত্তির উপর প্রতিষ্ঠিত করতে নিবেদিতপ্রাণ হয়ে কাজ করেছেন। বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে গণতান্ত্রিক আন্দোলন সংগ্রামে তিনি যে সাহসিকতার পরিচয় দিয়েছেন তা জাতীয়তাবাদী দলের নেতাকর্মীদের নিকট অনুপ্রেরণা হয়ে থাকবে। একজন সৎ, সজ্জন ও পরোপকারী ব্যক্তি হিসেবে এলাকার সকলে তাকে পছন্দ ও সম্মান করতো। তাঁর মৃত্যুতে রাজনৈতিক অঙ্গনের পাশাপাশি এলাকাবাসীর মাঝেও শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

নেতৃবৃন্দ মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং শোকাহত পরিবার, আত্মীয়স্বজনের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

আরও খবর