একাধিক জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরী করে চার বিয়ে করার অভিযোগে অভিযুক্ত মিনু আক্তার আদালতে আত্মসমর্পন করলে আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। এর দুই আগে তার প্রতারণার সঙ্গী রাশেদ আদালতে আত্মসমর্পন করলে তাকেও সেদিন কারাগারে পাঠিয়েছিল আদালত।

বুধবার (২৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট শফি উদ্দীনের আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করলে আদালত শুনানি শেষে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেন মিনুর প্রতারণা শিকার ও সাবেক স্বামী ঈমাম হোসেনের আইনজীবী অ্যাডভোকেট গোলাম মাওলা মুরাদ।

তিনি বলেন, বুধবার সকালে মিনু আক্তার আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। আদালত শুনানি শেষে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

এর আগে গত ৮ সেপ্টেম্বর মিনু আক্তার, মোস্তফা জামিল (৩৭) ও রাশেদকে (৩৯) আসামি করে মিরসরাইয়ের সন্তান প্রবাসী ঈমাম হোসেন আদালতে মামলা দায়ের করেন। আদালত মামলাটি বায়েজিদ থানাকে এজাহার হিসেবে নেওয়ার জন্য আদালত আদেশ দিয়েছিলেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, মিনু আক্তার কয়েকটি জাতীয় পরিচয় পত্র এবং বিভিন্ন নামে নাগরিক সনদ বানিয়ে বৈবাহিক প্রতারণাসহ ফেসবুক, ইমো, হোয়াটসঅ্যাপে বিভিন্ন নামে অ্যাকাউন্ট খুলে দেশি ও প্রবাসীদের সঙ্গে প্রতারণা করেছে। প্রবাসী ও ধনীর দুলালরা তার প্রধান শিকার হিসেবে ধরা হতো।

আরও খবর