‘মানুষের চেতনা, নতুন প্রজন্মের দৃষ্টিভঙ্গি উপেক্ষা করে, প্রাকৃতিক সৌন্দর্য নষ্ট করে কোনো উন্নয়ন হতে পারে না। সিআরবি আমাদের শৈশবের স্মৃতি ধন্য স্থান। সিআরবি রক্ষা করতে হবে চট্টগ্রামের স্বার্থে। কিছু রাজনীতিক আজ খন্দকার মোশতাকের মতো মীরজাফরের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছে। তারা হাসপাতালের পক্ষে অবস্থান নিয়ে রাতের আঁধারে ব্যানার টাঙিয়ে নিজেদের আরো বেশি করে জনগণের বিপক্ষে দাঁড় করিয়ে দিয়েছেন। যদি তারা জনগণের রাজনীতি করতেন, জনগণ যদি তাদের পাশে থাকতো, তাহলে রাতের আঁধারে নয়, দিনের আলোতেই তারা হাসপাতালের পক্ষে ব্যানার টাঙাতে পারতেন। তারা নিজেরাও জানেন তারা অপকর্ম করছেন। মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সাথে প্রতারণা করলে জনগণ তাদের ক্ষমা করবে না।’ সিআরবি রক্ষার দাবিতে নাগরিক সমাজ, চট্টগ্রামের উদ্যোগে আয়োজিত ধারাবাহিক অবস্থান কর্মসূচি ও প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তাগণ এ অভিমত ব্যক্ত করেন।

বুধবার (৮ সেপ্টেম্বর) অবস্থান কর্মসূচি ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন নাগরিক সমাজ, চট্টগ্রামের কো চেয়ারম্যান রাজনীতিক ও সংস্কৃতিসেবী মফিজুর রহমান।

ছাত্র নেতা মাহমুদুল করিমের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, নাগরিক সমাজ চট্টগ্রামের সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী বাবুল, মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ ইউনুস, সাবেক ছাত্র নেতা মো. শাহজাহান চৌধুরী, বিএফইউজে যুগ্ম মহাসচিব মহসীন কাজী, ন্যাপ নেতা মিঠুল দাশগুপ্ত, কবি ও সাংবাদিক কামরুল হাসান বাদল, আবৃত্তি শিল্পী রাশেদ হাসান, সংস্কৃতি কর্মী স্বপন মজুমদার, আওয়ামী লীগ নেতা হাসান মনসুর, মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী লায়লা আক্তার এটলি, আবৃত্তি শিল্পী প্রনব চৌধুরী, কৃষক নেতা হুমায়ূন কবীর মাসুদ, সাবেক ছাত্র নেতা শিবু প্রসাদ চৌধুরী, নূরুল আজিম রণি, ডা. আর কে রুবেল, তোফাজ্জল হোসেন জিকু, অ্যাডভোকেট রাশেদুল আলম রাশেদ, কামরুল হুদা পাভেল, আনোয়ার হোসেন পলাশ, মাইমুন উদ্দিন মামুন, সাজ্জাদ হোসেন জাফর, মোস্তাফিজ উদ্দিন মাহিন, মিনহাজুল আবেদীন, শাহাদাৎ হোসেন শাওন প্রমুখ।

 

আরও খবর