আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে ৬ ঘণ্টা সিএনজি ফিলিং স্টেশন বন্ধ রাখার তথ্য জানিয়েছিল বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়।

তবে এ সিদ্ধান্ত কার্যকরের পূর্বঘোষিত তারিখ থেকে সরে এসেছে মন্ত্রণালয়। সিদ্ধান্ত নিতে মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) পেট্রোবাংলার কার্যালয়ে বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।

সোমবার রাতে মন্ত্রণালয়ের উপপ্রধান তথ্য অফিসার মীর মোহাম্মদ আসলাম উদ্দিন এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি জানান, বিকেল ৫টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত সিএনজি ফিলিং স্টেশন বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে। ১৫ তারিখ থেকে এ সিদ্ধান্ত কার্যকর করার কথা বলা হলেও তা বদল করা হয়েছে। এটি নিয়ে আগামীকাল বৈঠক হবে। সেখানেই কার্যকরের তারিখ নির্ধারণের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে।

মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সিএনজি স্টেশন বন্ধের বিষয়টি নিয়ে আগামীকাল মঙ্গলবার পেট্রোবাংলার কার্যালয়ে অংশীজনদের নিয়ে বৈঠক হবে। সেখানেই ঠিক হবে কবে থেকে এ সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে।

এর আগে, এ ইস্যুতে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ থেকে পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যানের কাছে একটি চিঠি পাঠানো হয়েছে।

চিঠিতে বলা হয়, গ্যাসভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রসমূহের গ্যাসের চাহিদা ও সরবরাহের স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা প্রণয়ন বিষয়ে বিগত ১৯ জুলাই প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক উপদেষ্টার উপস্থিতিতে এবং বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ভার্চুয়াল সভায় নিম্নরূপ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় যে, বিদ্যুতের দৈনিক পিক-আওয়ারে সিএনজি স্টেশন বন্ধ রাখতে হবে।

ওই সিদ্ধান্তের আলোকে বিদ্যুতের দৈনিক পিক আওয়ারে (বিকেল ৫টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত) সিএনজি স্টেশন বন্ধ রাখা এবং এ বিষয়টি কমপক্ষে তিনটি দৈনিক পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি আকারে প্রকাশের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে চিঠিতে পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যানকে নির্দেশনা দেয়া হয়।

দুপুরে মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়েছিল, আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে এ সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে। তবে শেষ পর্যন্ত এ সিদ্ধান্ত বদল করল মন্ত্রণালয়।

আরও খবর