করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে নগরের চেয়ে গ্রামের মানুষকেই বেশি করে আক্রান্ত করেছিল। যদিও আগস্ট মাস থেকে সংক্রমণের হার কমতে শুরু করেছে। যেটি এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে কদিন ধরে চট্টগ্রামের বেশ কয়েকটি উপজেলাতে করোনা আক্রান্ত কোন রোগীই ছিল না। গত ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামে ১৩৩ শনাক্তের মধ্যে চট্টগ্রামের ৫ উপজেলায় কোনও করোনা রোগী শনাক্ত হয়নি। তবে মৃত্যু আগেরদিনের মতো ৪ জনই স্থির আছে।

এ নিয়ে চট্টগ্রামে করোনা রোগীর সংখ্যা গিয়ে দাঁড়াল ১ লাখ ৪৫২ জনে। অন্যদিকে, নতুন ৪ জনসহ মোট মৃত্যু ১ হাজার ২৫৯ জনে এসে দাঁড়িয়েছ।

বুধবার (৮ সেপ্টেম্বর) চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদনে জানা যায়, চট্টগ্রামের ১৩টি ল্যাবের মধ্যে ১ হাজার ৫০৯ জনের করোনার নমুনা পরীক্ষায় মোট ১৩৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়। এরমধ্যে ৮৭ জন নগরের আর ৪৬ জন বিভিন্ন উপজেলার বাসিন্দা। আর মৃতদের মধ্যে ২ জন নগরের আর ২ জন উপজেলার বাসিন্দা।

তবে ১৩ ল্যাবের নমুনা পরীক্ষায় তিনটিতে কোনও রোগীই শনাক্ত হয়নি। কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৩ জন, এন্টিজেন টেস্টে ২৫ ও ল্যাব এইডে দুই জনের নমুনা পরীক্ষায় কোনও রোগী শনাক্ত হয়নি। এছাড়া ৬ জনের নিচে শনাক্ত হয়েছে ইম্পেরিয়াল, শেভরন, মা ও শিশু হাসপাতাল, আরটিআরএল ও মেডিকেল সেন্টার হাসপাতালে।

তবে সবচেয়ে স্বস্তির খবর হলো— লোহাগাড়া, সাতকানিয়া, বাঁশখালী, আনোয়ারা ও মিরসরাই উপজেলায় কোনও রোগীই শনাক্ত হয়নি মঙ্গলবার। এছাড়া পটিয়া ও সন্দ্বীপে ১জন করে, চন্দনাইশে ২ জন, সীতাকুণ্ডে ৩ জন, বোয়ালখালীতে ৪ জন, রাঙ্গুনিয়া ও ফটিকছড়িতে ৫ জন করে, রাউজানে ৯ জন, হাটহাজারী ১৬ জন রোগী শনাক্ত হয়।

আরও খবর