করোনা মহামারির কারণে দীর্ঘ প্রায় ২০ মাস পর (৫৮০ দিন) চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) সশরীরে পাঠদান কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এতদিন অনলাইনে ক্লাস চললেও এখন থেকে সশরীরে শ্রেণিকক্ষে উপস্থিত হয়ে ক্লাস ও পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) সকালে বিভিন্ন বিভাগে সশরীরে ক্লাস শুরু হয়। এর আগে সোমবার এক ডোজ করোনার টিকা নেওয়া শর্তে আবাসিক ও অনুমতিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের জন্য হল খুলে দেয়া হয়। এছাড়া শনিবার থেকে চালু হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শাটল ট্রেনও।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা, ফাইন্যান্স, বন ও পরিবেশবিদ্যাসহ বেশকিছু বিভাগে সশরীরে ক্লাস শুরু হয়েছে। তবে চলতি মাসের বাকি দিনগুলো পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী, ভর্তি পরীক্ষার কারনে বন্ধ থাকায় বিশ্ববিদ্যালয়ে পুরোদমে ক্লাস শুরু হবে আগামী মাসে।

এ দিকে শাটল ট্রেন, হল ও সশরীরে শ্রেণি কার্যক্রম চালু হওয়ায় বেশ উচ্ছ্বসিত বিশ্বিবদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

বাংলা বিভাগের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী হাফিজুল ইসলাম শিহাব বলেন, করোনার শুরুতে যখন ক্যাম্পাস বন্ধ ঘোষণা করা হয়, তখন বেশ শঙ্কায় ছিলাম আর ক্লাসে ফিরতে পারবো কিনা। তবে দীর্ঘ ১৯ মাস পর সব শঙ্কা, সংশয় দূর করে আমরা আবারও ক্লাসে ফিরতে ফেরেছি। খুব ভালো লাগা কাজ করছে।

একই বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ শেখ সাদী বলেন, সশরীরে ক্লাসে অংশ নিতে আমরা এতদিন অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছিলাম। অবশেষে আমরা সেই সময়টায় পৌঁছেছি। দীর্ঘ প্রায় ১৯ মাস পর ক্লাসে ফিরতে পেরেছি। শিক্ষার্থীরাও প্রাণবন্ত ছিলো।

আরও খবর